ডেঙ্গু: চাপ বাড়ছে শিশু হাসপাতালে, ‘গুরুতর’ রোগীও আসছে

ঢাকার শিশু হাসপাতালে জরুরি বিভাগের সামনে শিশুদের নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন মায়েরা; দীর্ঘ লাইন এগোচ্ছে ধীরগতিতে, অপেক্ষায় ক্লান্ত হয়ে পড়ছে সঙ্গে থাকা অসুস্থ শিশুরা।

শিশুদের যন্ত্রণা দেখে অভিভাবকরা মাঝেমধ্যেই ঠেলেঠুলে আগে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। আগেভাগেই চিকিৎসকের দেখা পেতে লাইন এড়াতে চাইছেন। এমন পরিস্থিতিতে মাঝেমধ্যে সেখানে জটলা তৈরি হচ্ছে। নিরাপত্তাকর্মীরা বারবার বলেও লাইন ঠিক রাখতে পারছেন না।

মিরপুরে অবস্থিত বিশেষায়িত বাংলাদেশ শিশু হাসপাতাল ও ইনস্টিটিউটের জরুরি বিভাগের সামনে অপেক্ষারত শিশুদের অধিকাংশই এখন আসছে জ্বর নিয়ে। ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়ার পর থেকে দিন যত যাচ্ছে ভিড়ও বাড়ছে।

অভিভাবকরা জানালেন, ডেঙ্গুর আতঙ্কে জ্বর দেখেই শিশুকে নিয়ে হাসপাতালে আসছেন তারা। এদেরই একজন আসমা বেগম মিরপুর ১১ নম্বর থেকে ৯ বছর বয়সী তাহমিদ হোসেনকে এখানে ভর্তি করিয়েছেন।

আসমা বলেন, “হঠাৎ করে ছেলের জ্বর আসে। পরীক্ষা করেই ডেঙ্গু ধরা পড়ে। ডাক্তার বাসায় চিকিৎসা করে আবার আরেকটা রিপোর্ট করতে বলল। তখন প্লাটিলেট কমে যাওয়ায় শিশু হাসপাতালে ভর্তি করাইছি। একটু বমিও হত।

“এইবারে এত মানুষ ডেঙ্গুতে মারা যাচ্ছে, এই ভয়ে বাচ্চাকে সাথে সাথে ভর্তি করাইছি।”

তার মতো এ হাসপাতালের আশপাশের এলাকার আরও অনেকে তাদের সন্তানকে নিয়ে এসেছেন। ঢাকার বাইরের রোগীও আসছে প্রতিনিয়ত।

ডেঙ্গু: চাপ বাড়ছে শিশু হাসপাতালে, ‘গুরুতর’ রোগীও আসছে

হাসপাতাল সংশ্লিষ্টরা জানাচ্ছেন, ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়ায় শিশুদের বিশেষায়িত এ হাসপাতালে জ্বর নিয়ে আসা রোগীর চাপ বেড়েছে। এতে চিকিৎসার পাশাপাশি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে বেগ পেতে হচ্ছে রোগীদের।

শনিবার হাসপাতালে ঢুকতেই রিপোর্ট সংগ্রহ কক্ষের সামনে রোগী ও তাদের স্বজনদের দীর্ঘ লাইন দেখা যায়। কয়েকজন জানালেন, রিপোর্ট পেতে তাদের অপেক্ষা করতে হচ্ছে দুই-তিন ঘণ্টা।

বেলা পৌঁনে ১টায় লাইনে দাঁড়িয়ে দুপুর সাড়ে ৩টাতেও রিপোর্ট পাননি ফার্মেগেইট থেকে আসা হোসনে আরা। তিনি জানান, ১০ মাস আগে তার মেয়ের ডেঙ্গু হয়েছিল। এখন আবার জ্বর আসায় টেস্ট করিয়েছেন।

“একটা রিপোর্ট নিতে যদি এত সময় লাগে, তাহলে অন্য কাজ করব কখন? রিপোর্টগুলো গুছিয়ে রাখলে দিতে তো সুবিধা হয়। কিন্তু ওনারা ওইটা করেন না। একজনকে রিপোর্ট দিতেই অনেক সময় লাগছে,” কিছুটা ক্ষুব্ধ হয়েই বলেন তিনি।

শিশু হাসপাতাল ও ইনস্টিটিউটের পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম জানান, ডেঙ্গু রোগীর চাপ বাড়লেও চিকিৎসক ও কর্মী না বাড়ায় চিকিৎসা দিতে তাদেরও বেগ পেতে হচ্ছে।

প্রতিবেদনটির বিস্তারিত পড়ুন বিডিনিউজ২৪ডটকম থেকে

ডেঙ্গু নিয়ে আরও পড়ুন

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top