সপ্তম বারের মতো ঢাকা ওয়াসার এমডি তাকসিম

আবারও ঢাকা ওয়াসার দায়িত্ব পেলেন তাকসিম এ খান। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) পদে আরও তিন বছর থাকছেন তিনি। বৃহস্পতিবার তাকে নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জারি করেছে স্থানীয় সরকার বিভাগ।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, পানি সরবরাহ ও পয়োনিষ্কাশন কর্তৃপক্ষ আইন ১৯৯৬–এর ২৮ (২) ধারা মোতাবেক তাকসিম এ খানকে তার বর্তমান চাকরির মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার পর থেকে তিন বছরের জন্য ঢাকা ওয়াসার এমডি হিসেবে পুনর্নিয়োগ করা হলো।

আগামী ১৪ অক্টোবর তাকসিম এ খানের বর্তমান চাকরির মেয়াদ শেষ হবে। এর দুই মাসেরও বেশি সময় আগেই তাকে আবারও নিয়োগ করা হলো পরবর্তী তিন বছরের জন্য।

অবশ্য তাকে পুনরায় ঢাকা ওয়াসার এমডি পদে নিয়োগ দিতে সিদ্ধান্ত হয় গত ১১ জুলাই। সেদিন বোর্ড সভার সিদ্ধান্তটি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় হয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে যায়। প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের পর নিয়োগ চূড়ান্ত হয়।

২০০৯ সালে ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে প্রথমবারের মতো নিয়োগ পেয়েছিলেন তাকসিম এ খান। এরপর পাঁচ দফায় তার মেয়াদ বাড়ানো হয়। আগামী ১৪ অক্টোবর তার ষষ্ঠ মেয়াদের শেষ দিন।

দুর্নীতি ও অনিয়মসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে তাকসিমের বিরুদ্ধে। তারপরও সপ্তমবারের মতো এমডি হিসেবে নিয়োগ পেলেন তিনি।

গত ১২ বছরে তাকসিম এ খানের মাসিক বেতন বেড়েছে ৪২১ শতাংশ। ঢাকা ওয়াসার এমডি হিসেবে তাকসিমের মাসে বেতন বর্তমানে ৬ লাখ ২৫ হাজার টাকা। করোনা মহামারির মধ্যে একলাফে ওয়াসার এমডির বেতন বাড়ানো হয় পৌনে ২ লাখ টাকা।

তাকসিম এ খান, তার স্ত্রী ও সন্তানেরা যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক।

১৯৯৬ সালে পাস হওয়া ওয়াসা আইন অনুযায়ী ‘ঢাকা ওয়াসা’ পরিচালিত হয়। আইন অনুযায়ী ব্যবস্থাপনা পরিচালকই সংস্থাটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা। ওয়াসা বোর্ডের প্রস্তাব বা সুপারিশ অনুযায়ী, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে এই পদে নিয়োগ দেয় সরকার।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top